Search

Home / Women Health Care Tips in Bengali / কিছু কার্যকর পদ্ধতি ত্বকের তেল নিয়ন্ত্রণ করার !

কিছু কার্যকর পদ্ধতি ত্বকের তেল নিয়ন্ত্রণ করার !

Tanuja Acharya | ডিসেম্বর 19, 2018

আপনার ত্বক কি তৈলাক্ত আর নিস্তেজ ? আপনি কি ক্রমাগত ত্বকের তেল নিয়ন্ত্রণ করার জন্য বিউটি পার্লার এর দ্বারস্থ হচ্ছেন , অঢেল পয়সা খরচ করেও অবশেষে নিরাশ হচ্ছেন ? চিন্তা নেই , আমরা আপনার জন্য নিয়ে এসেছি কিছু ঘরোয়া উপায় তৈলাক্ত ত্বকের সমস্যা দূর করার ! তৈলাক্ত ভাব হয় সাধারণত সিরাম এর জন্য  ( মেদ থেকে ক্ষরিত রস ) যা উৎপাদন হয় মেদবহুল চর্বি থেকে যা আপনার ত্বকে থাকে । এটা প্রাকৃতিক আর্দ্রতা বজায় রাখে কিন্তু অতিরিক্ত উৎপাদন ত্বকের ক্ষতি করে , ত্বক নিস্তেজ করে, ব্রণ হয় আর ত্বকের ছিদ্রকে বন্ধ করে দেয় ।

নিচে কিছু পদ্ধতি দেওয়া আছে যা আপনার ত্বকের অতিরিক্ততৈলাক্ত কম করে । এই সহজ পদ্ধতি গুলো মেনে চললে আপনার ত্বক সারাদিন সতেজ আর সুন্দর দেখাবে ।

 

১। শোষক কাগজ (Blotting Papers )

এই কাগজগুলো খুব পাতলা, ম্যাট ফিনিশ কাগজ যা সহজেই যে কোনও সৌন্দর্য পণ্যর দোকানে পাওয়া যায় । শুধু ভালো করে এই কাগজ দিয়ে মুখ মুছে নিন আর নিজের ত্বক রক্ষা করুন তৈলাক্ত আর নিস্তেজ ভাব থেকে।এই কাগজ বাড়তি তেল শুষে নেয় যা আপনার ত্বকে বহু সময় ধরে আছে আর ভালো করে  মুখ পরিষ্কার করে ।

 

২। বাষ্প নেওয়া

আরও একটা পদ্ধতি ত্বকের তেল ভাব পরিষ্কার করার আর ছিদ্র এর মুখ খুলে দেওয়ার জন্য ত্বকে বাষ্পর দ্বারা । জল একটা পাত্রে গরম করুন  , তোয়ালের দ্বারা নিজের মুখ ঢেকে নিন আর ভালো করে বাষ্প নিন । এই ভাবে কিছুক্ষণ থাকুন , এতে আপনার ভিতর থেকে ছিদ্র গুলো পরিষ্কার করে খুলে দেয় । নিজের মুখ ভালো করে ঘরোয়া পদ্ধতির দ্বারা ঘষে নিন ( নিচে দেওয়া আছে ) , এবার ঠাণ্ডা জলে মুখ ধুয়ে নিন তৎক্ষণাৎ ছিদ্র বন্ধ করার জন্য ।

 

৩। পরিষ্কারক

যে সব ব্যক্তিদের তৈলাত্ত ত্বক তারা খুব বেশি ত্বক পরিষ্কার করেন না  , যদি আপনার তৈলাত্ত ত্বক হয় তাহলে আপনাকে পরামর্শ দেওয়া হল দিনে দুবার মুখ ধোবেন যে কোনও সময় যেটা আপনি সঠিক বোধ করবেন ভালো করে মুখ ধোওয়ার । রুক্ষ ত্বকের ঘষার জিনিস বা সুগন্ধি সাবান ব্যবহার করবেন না । এতে আপনার ত্বকের গঠনবিন্যাসে ক্ষতি হতে পারে । ত্বক পরিষ্কার করে আপনি ত্বক কে সাহায্য করেন তেল মুক্ত আর শুষ্ক থাকতে ।

 

৪। মুখের প্যাক

নিম্ন লিখিত যে কোনও মুখের প্যাক সপ্তাহে একবার লাগান , বাড়িতেই ব্যবহার করুন আর দেখুন কিভাবে ত্বকের তেল ভাব কম হয় ।

  • লেবুর সাথে দই – অর্ধেক লেবুর রসে দই মেশান । এবার মুখে লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে দিন তারপর ধুয়ে ফেলুন । লেবু প্রাকৃতিক ভাবে মুখ পরিষ্কার করে আর তেল ভাব কম করে আর দই ত্বকের মৃত কোষ সরিয়ে দেয় ।
  • মুলতানি মাটি – এক বা দু চামচ মুলতানি মাটি সাথে এক চামচ গোলাপ জল সাথে অর্ধেক লেবুর রস দিয়ে ভালো করে মিশ্রণ বানান আর মুখে লাগান । ১৫-২০ মিনিট রেখে দিন আর ধুয়ে ফেলুন । এটা খুব ভালো তেল শুষে নেয়।
  • পুদিনা প্যাক – এক গুচ্ছ পুদিনা নিন আর মধুর সাথে ভালো করে পিশে একটা মিশ্রন বানান , এবার এটা মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট রাখুন আর তারপর ধুয়ে ফেলুন

 

৫। ত্বকের মৃত কোষ দূর করা (Exfoliate)

হ্যাঁ ! যাদের তৈলাক্ত ত্বক তাদের এই পদ্ধতিটা সপ্তাহে ১ বা ২ বার করা উচিত। স্ক্রাবিং করলে মৃত কোষ গুলি বেরিয়ে যায় আর ত্বক কে রক্ষা করে তেল , ব্রণ , ফুসকুড়ি , হোয়াইট হেড আর ব্ল্যাকহেড থেকে । আপনি ঘরোয়া স্ক্রাব ব্যাবহার করতে পারেন যেমন –

  • বাদামি চিনি আর লেবু
  • সাদা চালের গুড়ো সাথে আদা আর মধু
  • বেকিং সোডা সাথে মধু আর লেবু

 

৬। গোলাপ জল থেরাপি

স্কিন কে টান টান করুন প্রাকৃতিক উপায়ে টোনার দিয়ে যেমন গোলাপ জল যা ত্বক পরিষ্কার করার পর খোলা ছিদ্র গুলো বন্ধ করতে সাহায্য করে আর অতিরিক্ত তেল কে দূরে রাখতে সাহায্য করে ।

 

৭ । ময়েশ্চারাইজার

 

অনেক লোকেরা বিশ্বাস করেন যে ময়েশ্চারাইজার লাগালে ত্বকের ক্ষতি হবে আর আরও বেশি তৈলাক্ত হয়ে যাবে । কিন্তু এটা সঠিক না । আপনি ত্বকের জন্য যথেষ্ট আর্দ্রতা আনতে পারেন ময়েশ্চারাইজার ব্যবহারের ফলে যা আপনার ত্বকের জন্য উপযুক্ত আর কম তেলচিটে । প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন যেমন অ্যালভেরা বা সেই সব পন্য যাতে প্রচুর পরিমানে অ্যালোভেরা আছে ।

কি করে নিজের ত্বক কে তৈলাক্ত হওয়া থেকে বাঁচাবেন ? যদিও এটা স্থায়ীভাবে নির্ণীত হয় না , তাও আপনি কিছুটা হলেও সেই তেল আটকাতে পারেন । ভাজা খাবার খাবেন না আর অতিরিক্ত মেক আপ করবেন না ত্বকের তেলা ভাব লোকাতে । এতে ফল খারাপ হবে । তেল মুক্ত মেক আপ ব্যবহার করুন যা নমনীয় আর আপনার ত্বকে উপযুক্ত , যদি এই অবস্থার উন্নতি না ঘটে বা আরও বাজে দিকে যায় তাহলে ত্বক বিশেষজ্ঞ এর পরামর্শ নিন ।

 

Tanuja Acharya

COMMENTS (0)

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।